বাঘায় সেই ছাত্রী অপহরনের হুমকি দাতা বখাটে যুবক মিন্টু গ্রেফতার

June 14, 2018 at 7:50 pm

বাঘা প্রতিনিধি:
রাজশাহীর বাঘায় প্রেমের প্রস্তাবে সাড়া না দেয়ায় সেই স্কুল ছাত্রীকে অপহরনের হুমকি দাতা বখাটে যুবক মিন্টুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার দুপুরে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে তাকে মোবাইল কোটে নেয়ার প্রস্তুতি চলছে।

জানা যায়, আড়ানী ফুলমননেছা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেনির এক ছাত্রীকে চারঘাট উপজেলার নিমপাড়া ইউনিয়নের রামচন্দ্রপুর গ্রামের জান্টু প্রামানিকের বখাটে ছেলে মিন্টু প্রামানিক দীর্ঘদিন থেকে রাস্তাঘাটে উত্ত্যক্ত করত। এই ঘটনা মিন্টুর পরিবারকে জানানোর পরও কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়না। নিরুপায় হয়ে স্কুল ছাত্রী নিজে বাদি হয়ে বাঘা থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। তবে এ ঘটনাটি পরে স্থানীয়ভাবে সমঝোতা করে নেয়া হয়। তার কিছুদিন পর বখাটে মিন্টু ওই স্কুল ছাত্রীকে পূনরায় প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে উত্ত্যক্ত করতে শরু করে। গত ১৯ মে চারঘাটের রামচন্ত্রপুর বাজারের সেলিমের চায়ের স্টোলে বখাটে মিন্টুকে উত্ত্যক্ত না করার জন্য অনুরোধ করেন স্কুল ছাত্রীর বাবা। মিন্টু ক্ষিপ্ত হয়ে স্কুল ছাত্রীর বাবাকে হাতুড়ি ও লোহার রড় দিয়ে পিটিয়ে জখম করে। ওই দিন ছাত্রীর বাবা বাদি হয়ে পূনরায় আরেকটি চারঘাট থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। এই অভিযোগের পর থেকে মোবাইল ফোনে মেয়েকে অপহরন করে নিয়ে যাওয়ার হুমকি দিয়ে আসছিল। ফলে মেয়েসহ পরিবার নিরপত্তাহীনতার মধ্যে ছিল। গত বুধবার বাঘায় সেই ছাত্রীর স্কুলে যাওয়া বন্ধ শিরোনামে দৈনিক যুগান্তরসহ বিভিন্ন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হয়। তারপর পুলিশ তাকে বৃহস্পতিবার দুপুরে রামচন্ত্রপুর এলাকা থেকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

স্কুল ছাত্রীর বাবা এই প্রতিবেদককে বলেন, মেয়েকে উত্ত্যক্ত করত, এমনকি আমাকেও যেখানে সেখানে অকথ্যভাষায় গালিগালাজ করত। আমি বখাটে মিন্টুর ভয়ে মেয়েকে দীর্ঘদিন থেকে স্কুল ও প্রাইভেট পড়তে যেতে দিতে পারিনা। এছাড়া প্রায় সময় মোবাইলে হুমকি দিত। আমি নিরুপায় হয়ে পড়েছিলাম। শুনেছি পুলিশ তাকে গ্রেফতার করেছে।

বাঘা থানার অফিসার ইনচার্জ রেজাউল হাসান বলেন, বাঘা থানায় এই বিষয়ে বছর খানেক আগে একটি অভিযোগ হয়েছিল। মামলার রেকর্ড হওয়ার আগে তারা নিজেরাই সমঝোতা হয়ে যায়। ফলে আসামীর বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করা সম্বব হয়নি।

চারঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ নজরুল ইসলাম বলেন, অভিযোগ হওয়ার পর আসামী পলাতক ছিল। তাকে গ্রেফতার অভিযান অব্যাহত ছিল। অবশেষে মিন্টুকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে তাকে মোবাইল কোটে নেয়ার প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।

স/অ

Print