বেঞ্চ তৈরীর নামে গোদাগাড়ী কলেজে দুই লাখ টাকা লোপাটের অভিযোগ

May 17, 2018 at 7:17 pm

নিজস্ব প্রতিবেদক:

বেঞ্চ তৈরীর নামে গোদাগাড়ী কলেজে দুই লাখ টাকা লোপাটের অভিযোগ উঠেছে গোদাগাড়ী কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুর রহমানের বিরু্দ্ধে। তিনি বেঞ্চ না বানিয়ে ১০০ জোড়া বেঞ্চের ভাউচার তৈরী করে দুইলাখ ৪৬৫ টাকা আত্মসাত করেছেন। বিষয়টি গভর্নিংবডি, শিক্ষক , শিক্ষার্থী এবং এলাকার সুধিজনদের মধ্যে সমালোচনার সৃষ্টি করেছে।

গোদাগাড়ী কলেজ গোদাগাড়ী উপজেলার অন্যতম শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। বর্তমান শিক্ষাবান্ধব সরকারের শিক্ষা উদারিকরণ নীতির অংশ হিসেবে কলেজটিতে ছয়টি বিষয়ে অনার্স কোর্স প্রবর্তিত হয়েছে। এছাড়াও কলেজটি জাতীয়করণের প্রক্রিায়াধীন। বর্তমান অধ্যক্ষ দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে কলেজের অর্থ বিভিন্ন ভাবে আত্মসাত করে চলেছে। বিভিন্ন সময় এনিয়ে ছাত্রছাত্রীরা মিছিল মিটিং করেছে। তারপরেও কোনকিছুকে তোয়াক্কা না করে বিভিন্ন ভাউচার তৈরী করে তিনি অর্থ আত্মসাতের কাজটি করে যাচ্ছেন।

সূত্রে জানা যায়, সম্প্রতি গোদাগাড়ী উপজেলা পরিষদ থেকে কলেজকে ৫০ জোড়া বেঞ্চ বিনামূল্যে সরবরাহ করা হয়। অথচ অধ্যক্ষ আব্দুর রহমান সেই বেঞ্চ গুলিকে কলেজ কর্তৃক নির্মিত মর্মে দেখিয়ে ভাউচারের মাধ্যমে দুই লক্ষ ৪৬৫ টাকা আত্মসাত করেন। বিষয়টি কলেজ গভর্নিং বডির ১০ মে ২০১৮ তারিখে এজেন্ডার মাধ্যমে উপস্থাপন করে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এবং অন্যন্য সদস্যদের পূর্বেই ম্যানেজ করে সভায় পাসকরে নেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে গভনিংবডির একজন সদস্য বলেন, তিনি এই ভাউচার অনুমোদন দেননি এবং বেঞ্চ নির্মাণ না করে টাকা আত্মসাতের চরম বিরোধীতা করেন। আব্দুর রহমান কলেজের বিভিন্ন উন্নয়ন কার্যক্রমে কমিটি গঠন করে দিলেও মূল স্টিয়ারিং থাকে তার হাতে। বেশীর ভাগ খরচ তিনিই করেন কিন্তু কমিটির মাধ্যমে সেগুলোর অনুমোদন করে নেন।

গোদাগাড়ীর প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত গোদাগাড়ী কলেজ আজ অনেকটায় পতনমুখ অবস্থায়। ক্লাসে ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা কমে গেছে। অধ্যক্ষের সহকর্মিদের প্রতি অসদচারণ এবং ছাত্র-ছাত্রীদের প্রতি রুঢ়তা এর অন্যতম কারণ। কলেজে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রী প্রথম বর্ষ পরীক্ষা চলছে। কিন্তু শুধুমাত্র ছাত্র-ছাত্রীদের পরীক্ষার ফিসের কারণে তিনি দুপুর ১ টা থেকে এইচএসসির বার্ষিক পরীক্ষা নিচ্ছেন। সামনে মাহে রমজান । দূর-দূরান্ত থেকে শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা দিতে এসে ক্লান্ত হয়ে পড়ছে। অধ্যক্ষের অর্থ আত্মসাত, শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের প্রতি অসদাচরণ এসব বিষয়গুলোর ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য এলাকার সর্বস্তরের মানুষ কলেজ গভনিংবডির সভাপতির দৃষ্টি আকর্ষণ পূর্বক অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নেয়ার জোর দাবি জানিয়েছে।

এবিষয়ে গোদাগাড়ী কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুর রহমান বলেন, উপজেলা পরিষদ হতে যে বেঞ্চ পাওয়া গেছে সেটি আলাদা এছাড়াও কলেজের পক্ষ হতে আলাদা ১০০ জোড়া বেঞ্চ বানানো হয়েছে। বেঞ্চ না বানিয়ে ভাউচার তৈরী করে বিল পাস করানো অভিযোগটি সম্পন্ন মিথ্যা বলে তিনি দাবি করেন।

স/অ

Print