নাটোরে যমুনা টিভির সাংবাদিকের বিরুদ্ধে দুটি মামলা

জনপ্রতিনিধির অনিয়ম নিয়ে সংবাদ প্রকাশ

May 14, 2018 at 10:11 pm

নিজস্ব প্রতিবেদক,নাটোর:
নাটোরে জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান ৭নং ওয়ার্ড সদস্য আলী আকবরের হুমকি ধামকি, চাঁদাবাজি, দোকান ও পুকুর দখল নিয়ে প্রতিবেদন করায় যমুনা টিভির স্টাফ রিপোর্টার এবং নাটোর টিভি রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হাসানের নামে দুটি মামলা দায়ের করেছে তারই দুই সমর্থক। অনুসন্ধানে মামলা দুটি উদ্দেশ্যে প্রণোদিত বলে প্রতীয়মান হয়েছে।

জানা যায়, নাটোরের অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে চাঁদাবাজির অভিযোগ এনে দুটি মামলা করা হয়। জেলা পরিষদের সদস্য আলী আকবর স্বশরীরে উপস্থিত থেকে তার সমর্থক শহরের আলাইপুর এলাকার বাসিন্দা খন্দকার সোহেল রানা সৈকতকে দিয়ে প্রথম মামলাটি দায়ের করেন। অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, গত ৩ মে সৈকত তার নিকট আত্মীয় আজিজুল হকের গাজীপুর বিলস্থ পুকুর কাটার তদারকি করার সময় এক লাখ টাকা চাঁদা দাবী করা হয়। অনুসন্ধানে বেড়িয়ে আসে সৈকতের নিকট আত্বীয় নয় আজিজুল। আজিজুল হকের জমি লীজ নিয়ে পুকুর কাটছে মোস্তফা নামে স্থানীয় একজন।

এবিষয়ে মোস্তফা জানান, আজিজুল হকের জমি লীজ নিয়ে পুকুর কাটছি। এপর্যন্ত কোন সাংবাদিক আসেনি। জমির মালিক বর্তমানে বিদেশে অবস্থান করছেন। সোহেল রানা সৈকতের নামে কাউকে চিনি না। তার তদারকি করার প্রশ্নই আসেনা।

এ বিষয়ে খন্দকার সোহেল রানা সৈকতের সাথে মোবাইল ফোনে জানতে চাওয়া হলে কোনই সদুত্তর দিতে পারেননি তিনি। অন্যের প্ররোচনায় এমন মামালা কেন এই প্রশ্নে সৈকত মোবাইল সংযোগ কেটে দেন। পরে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

২য় মামলাটি করেন সদর উপজেলার সুলতানপুর গ্রামের ইসলাম উদ্দিন। গত ১৩ মে দায়ের হওয়া মামলায় ঘটনার তারিখ ও সময় উল্লেখ করা হয় ১০ মে সকাল ১১টায়। ঘটনাস্থল বাগরোম বাজার। চাঁদা চেয়ে না পেয়ে বাদীকে পেটানোসহ হুমকি ধামকির কথা উল্লেখ করা হয়। অনুসন্ধানে জানা যায়, ঐ দিন সাংবাদিক নাজমুল হাসান দয়ারামপুরে আর্মি পরিচালিত বাউয়েট টেক ফেয়ারে আমন্ত্রিত হয়ে সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬ টা পর্যন্ত সেই অনুষ্ঠানে ছিলেন।

বাউয়েট শিক্ষক হামিদুল ইসলাম ও রেজিষ্টার মোশারফ হোসেন সিল্কসিটি নিউজকে জানান, যমুনা টেলিভিশনের স্টাফ রিপোর্টার নাজমুল হাসান আমাদের আমন্ত্রিত অতিথি হিসাবে ১০ তারিখ সকাল ১০টায় রেজিষ্ট্রেশন করে অনুষ্ঠান কাভারেজ দিয়েছে। সন্ধ্যা ছয়টার দিকে তাকে আমরা বিদায় জানাই। তার সাথে জনকণ্ঠের সাংবাদিক কালিদাস রায় ছিলেন।

এবিষয়ে মামলার বাদি ইসলাম উদ্দিনের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করে নাজমুল হাসানকে চেনেন কি না এমন প্রশ্ন করলে তিনি জানান, অল্প অল্প চিনি। নাজমুলের গায়ের রঙ কি এমন প্রশ্নে কিছুক্ষণ চুপ থেকে তিনি বলেন, শ্যামলা। যা সাংবাদিকের বর্নণার সাথে মেলেনা।

কেন মামলা করলেন এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, চাঁদা চেয়েছিল তাই করেছি। কিন্তু ১০তারিখে সকাল ১০টা থেকেই নাজমুল সেনাবাহিনী পরিচালিত বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রোগামে ছিলেন এমন প্রশ্নে ইসলাম উদ্দিন বলেন, তাহলেতো ভুল-ই হয়ে গেল। এখন একটা শালিসে আছি পরে কথা বলবো বলেই মোবাইলের সংযোগ কেটে দেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা পরিষদের সদস্য আলী আকবর সিল্কসিটি নিউজকে জানান, মামলা বিষয়ে আমি কিছুই জানিনা। যারা মামলা করেছে তারাই এবিষয়ে বলতে পারবে। আমি তরিকা করা লোক। মানুষের ক্ষতি হোক আমি এমন কিছু করিনা। মামলার সময়ে নিজে উপস্থিত ছিলেন কিনা এমন প্রশ্ন করলে মোবাইল সংযোগ কেটে দেন তিনি।

যমুনা টেলিভিশনের স্টাফ রিপোর্টার নাজমুল হাসান জানান, গত ৭, ৮, ৯ মে যমুনা টেলিভিশনের প্রতিঘন্টার সংবাদ ও ক্রাইম সিনে জেলা পরিষদ সদস্য আলী আকবরের হুমকি ধামকি, চাঁদাবাজি, দোকান ও পুকুর দখল নিয়ে ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রচারিত হয়। এই প্রতিবেদন করার সময় থেকে সমঝোতার জন্য বার বার তাগাদা আসছিল। রিপোর্ট প্রচার হলে কয়েকটি মামলা হবে এমন কথা বলা হচ্ছিল। উদ্দেশ্য প্রণোদিত হয়ে আলী আকবর তার দুই সমর্থক দিয়ে মামলা দুটি করিয়েছে।

নাটোর টিভি রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি বাপ্পী লাহিড়ী জানান, বিষয়টি নিয়ে আমরা আলোচনা করেছি। একজন জনপ্রতিনিধির এ ধরনের আচরণ মোটেও কাম্য নয়। অবিলম্বে মামলা প্রত্যাহার না হলে কঠোর কর্মসুচি দেওয়া হবে।
স/শ

Print