বাঘায় ভুট্টার লক্ষমাত্রার চেয়ে দ্বিগুন চাষ

April 20, 2018 at 10:32 am

আমানুল হক আমান, বাঘা:

দেশের বিভিন্ন পোল্ট্রি ফার্ম ও ফিড মিলসের মুরগির খাবার তৈরির অন্যতম উপাদান ভুট্টা। ফিড মিলসগুলোর কাঁচামালের চাহিদা পূরণের জন্য বাঘা উপজেলায় কৃষকরা ভুট্টা আবাদে বেশি ঝুঁকছেন।

ফলে প্রতি বছরই উপজেলায় ভুট্টার আবাদ বাড়ছে। সরকার ভুট্টা আবাদের ওপর অধিকতর গুরুত্বারোপ করায় চাষিদের ও আগ্রহ বেশি দেখা যাচ্ছে। ভুট্টা আবাদে কৃষি বিভাগ থেকে মাঠ কর্মীরা কৃষকদের হাতে কলমে প্রশিক্ষণসহ মাঠে গিয়েও উন্নত পদ্ধতিতে বীজ বপনে সহযোগিতা করছেন। এ ছাড়া দলগতভাবে কৃষকসভার মাধ্যমে ভুট্টা চাষের ওপর প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।

এখন মাঠে সবুজ পাতার আড়ালে হাসছে হালকা সবুজ ও হালকা হলুদ রঙের ভুট্টার থোড়। ভুট্টা গাছের মাথায় রঙিন ফুল, গায়ে হলুদ বর্ণ। এসব ভুট্টা দোল খাচ্ছে বাতাসে। উৎপাদন বেশি, খরচ কম তাই ভুট্টা চাষে আগ্রহ বেড়েছে উপজেলার কৃষকদের।

চলতি মৌসুমে উপজেলায় এসকে ৪০, প্যাসিফিক, মুকুট, এলিট, সুপার ফাইন জাতসহ সব ধরনের জাতের ভুট্টার আবাদ হচ্ছে। তাই উপজেলার উৎপাদিত ভুট্টার চাহিদা মিটিয়ে দেশের বিভিন্ন জেলায় সরবরাহ করা যাবে বলে আশা করছেন চাষি এবং কৃষি বিভাগের কর্মকর্তারা।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্র জানায়, চলতি মৌসুমে এ উপজেলায় ভুট্টার লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১৭৫ হেক্টর জমিতে। চাষ হয়েছে ৩০০ হেক্টর জমিতে।

উপজেলার হামিদকুড়া গ্রামের ভুট্টা চাষি আবদুল জলিল জানান, কৃষি অফিসের পরামর্শে বোরো ধানের পাশাপাশি কয়েক বছর থেকে ভুট্টার আবাদ শুরু করেছি। এছাড়া প্রাকৃতিক দুর্যোগ ভুট্টা আবাদের ওপর তেমন প্রভাব ফেলেনা। সার, কীটনাশক ও সেচসহ অন্যান্য খরচ কম হওয়ায় ভুট্টা চাষে কৃষকরা দিন দিন আগ্রহী হয়ে উঠছেন।

এ উপজেলার ভুট্টার দানা এবং রং ভালো হওয়ায় বাজারেও চাহিদা অনেক। তাই স্থানীয় ব্যবসায়ীরা চাষিদের কাছ থেকে সরাসরি ভুট্টা কেনেন।

উপজেলা কৃষি সাবিনা বেগম জানান, বাঘা উপজেলার আশেপাশে বিভিন্ন স্থানে ছোট-বড় বেশ কয়েকটি ফিড মিলস (পোল্ট্রি পাখির খাবার তৈরির মিল) গড়ে উঠেছে। ভুট্টা পোল্ট্রি মুরগির খাদ্যের প্রধান উপাদান। ফলে দিন দিন এ উপজেলায় ভুট্টার আবাদও বাড়ছে।

শুধু উৎপাদন বাড়ালেই হবে না, মাটির উর্বরতা যেন ঠিক থাকে এবং চাষিরা যাতে পরিকল্পিতভাবে ভুট্টার আবাদ করতে পারেন সেদিকেও নজর দেওয়া হচ্ছে।

 

স/আ

Print