গোদাগাড়ীতে হতদরিদ্রের ১০ টাকার চাল ওজনে কম, গোডাউনে তালা

April 17, 2018 at 4:51 pm

গোদাগাড়ী প্রতিনিধিঃ

রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে সরকারের দেওয়া কম মূল্যে হতদরিদ্রদের জন্য ১০ টাকার কেজি চাল বিক্রয়ে ওজনে কম দেওয়ায়   ডিলারের গোডাউনে তালা লাগিয়ে দিয়েছে উপকার ভোগীরা। সোমবার বিকেল সাড়ে তিন টার দিকে উপজেলার রিশিকুল ইউনিয়নে চাল ডিলারের গোডাউনে এই ঘটনা ঘটে।

আজ মঙ্গলবার সকালে রিশিকুল ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ও রিশিকুল ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মোঃ শহিদুল ইসলাম টুলুর হস্তক্ষেপে ওজনে কম দেওয়ার বিষয়টি ভূল স্বীকার করে পুনরায় তালা খুলে গোডাউনে চাল বিক্রয় শুরু হয়।

রিশিকুল ইউনিয়নের আলোকছত্র গ্রামের ১০ টাকার কেজি চাল ক্রয়ের উপকার ভোগী মোঃ আলাল উদ্দীন সিল্কসিটি নিউজকে  বলেন,  এই ইউনিয়নে সাবেক যুবলীগ সভাপতি জিল্লার রহমান ডিলার নিয়োগ ছিলো তার মৃত্যুর পর স্ত্রী জোসনারা ডিলার নিয়োগ হয়। জোসনারা ২ ওয়ার্ড এর যুবলীগ সভাপতি মুক্তার কে দিয়ে চাল বিক্রীর কাজ চালিয়ে আসছিলো।

চলতি বছরের মার্চ মাসের প্রথম সপ্তাহ হতে চাল বিক্রীর শুরুর পর হতেই মুক্তার আলী উপকার ভোগীদের মাঝে মাথাপিছু প্রতি মাসে ৩০ কেজি চাল দেওয়ার নিয়ম থাকলেও ৩ হতে চার কেজি কম দিয়ে আসছিলো। গত সোমবার (১৬ এপ্রিল) উপকার ভোগীরা একজোট হতে ওজনে কম দেওয়ার প্রতিবাদে  মুক্তার আলীর নিকট হতে চাবি কেড়ে নিয়ে চালের গোডাউনে তালা লাগিয়ে দেয়।

ফলে ওই এলাকার পরিস্থিতি অশান্ত হয়ে উঠে। পরদিন মঙ্গলবার সকাল ১১ টার দিকে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম টুলু ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে উপকার ভোগীদের কে গোডাউনের তালা খুলে দিতে বলে । যদি খুলে না দেওয়া হয় তবে সরকারি চাল বিক্রির কাজে বাধা প্রদানের জন্য পুলিশ এসে আটক করবে বলে ভয় দেখালে উপকার ভোগী ও স্থানীয় প্রায় ৫ শাতাধিকেরও বেশী লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে পড়ে। ফলে  উত্তেজনা বিরাজ করতে থাকে। পরে চাল ডিলার জোসনারা ও তার প্রতিনিধি  মুক্তার আলী ওজনে কম দেওয়ার বিষয়টি ভূল স্বীকার করে আর কোনদিন কম দেওয়া হবে না বলে প্রতিশ্রুতি দিলে পুনরায় চাল বিক্রয় শুরু হয়।

ওই এলাকার উপকার ভোগী ইমদাদুলসহ অন্যান্য উপকার ভোগীরা দাবি জানান, আগে হতেই মুক্তার আলী আমাদেরকে ৩০ কেজি চালের বিপরিতে ৩ হতে ৪ কেজি কম দিয়ে আসছে । আমরা তার ডিলার শিপ বাতিল চাই এবং খাদ্য অধিদপ্তরের বন্তায় চাল দেওয়ার দাবি জানান। আর যদি না হয় তাহলে পুনরায় আমরা চাল বিক্রি বন্ধ করে দেব বলে হুশিয়ারি দেন।

চাল ডিলার জোসনার প্রতিনিধি মুক্তার আলীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ওজনে কম দেওয়ার কথাটি স্বীকার করে সিল্কসিটি নিউজকে বলেন, সোমবার বিকেলে ৮ হতে ১০ জনের কাছে কম চাল গেছে দাঁড়ি পাল্লর ত্রুটি থাকার কারনে। তবে গোডাউনে তালা লাগার বিষয়টি তিনি অস্বীকার করে বলেন এক নেতার নির্দেশে আমি তালা লাগিয়ে দেয়।

রিশিকুল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ শহিদুল ইসলাম টুলু সিল্কসিটি নিউজকে বলেন, চাল বিক্রয়ে একটু সমস্য হয়ে ছিলো আমি তা মিমাংসা করে দিয়ে পুনরায় চাল বিক্রয় শুরু হয়েছে। সার্বিক বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সাথে কথা বলে কি ভাবে চাল বিক্রয় ভাল করা যাই তা সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানান।

উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক শ্রী বিকাশ চন্দ্র সিল্কসিটি নিউজকে বলেন , চাল ওজনে কম দেওয়ার বিষয়টি শুনেছি আমি ঘটনা স্থলে গিয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবো জলে জানান।

স/শ

Print