বেলের শরবত বিক্রি করেই বেশ ভালো চলছে বিনোদপুরের বক্কারের

March 10, 2018 at 2:34 pm

নিজস্ব প্রতিবেদক:

একটি পুষ্টিকর আর উপকারী ফল। কাচা পাকা দুটোই সমান উপকারী। কাঁচা বেল ডায়রিয়া ও আমাশয় রোগে খুবই উপকারী। পাকা বেলের শরবত সুস্বাদু। বেলে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি, এ এবং ক্যালসিয়াম, ফসফরাস ও পটাসিয়ামের মত মূল্যবান পুষ্টি উপাদান। বেলকে বলা হয় শ্রীফল কারণ হিন্দুদের পুজা-অর্চনায় বেলের পাতা ও ফল ব্যবহার করা হয়। হিন্দুরা বেল কাঠও পবিত্র জ্ঞান করে বিধায় কখনো বেল কাঠ পুড়িয়ে রান্না করে না।

গরমে এই বেলের সরবত এখন রাজশাহীতে বিক্রি হচ্ছে বেশ। বিশেষ করে নগরীর বিনোদপুর বাজারে আবু বাক্কার ছিদ্দিকের বেলের সরবতের কদর বাড়ছে বেশ। প্রতি গ্লাস ১০ করে বিক্রি করছেন আবু বাক্কার ছিদ্দিক।

আবু বক্কার দীর্ঘদিন ধরে বিনোদপুর বাজারে বেলের শরবত বিক্রি করে আসছেন। ভিন্নরকমের স্বাদ তার শরবতে। কলেজ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষকরা মূলত তার খদ্দের। রিকশা ও ভ্যানচালকরা বাদ যান না বাক্কারের সরবত থেকে। তারও ছুটে আসেন সুস্বাদু সরবতের আশায়। বিশেষ করে যত গরম পড়ে তত বাড়ে বাক্কারের সরবতের কদর।

বাক্কার জানান, বারো মাস’ই পাওয়া যায় তার দোকান বেলের শরবত। তাই তাকে দেশের দুর দূরন্ত হতে বেল সংগ্রহে রাখতে হয়।
বেল অত্যান্ত জরুরী একটা ওষুধি ভেষজ ফল। অসাধারন গুনাগুনে ভরা এই বেল বিশেষ করে যাদের পেটে কোষ্টকাঠিন্য রয়েছে তাদের জন্য খুবই উপকারি।

আবু বক্কার জানান, গড়ে তার দোকান অন্তত দেড় হাজার টাকার শরবত বিক্রি হয়। যা থেকে তার লাভ হয় অন্তত ৮০০ টাকা। শরবত বিক্রি করেই তিনি বেশ ভালো আছেন। এর ফলে এখন আর সিগারেট বিক্রি করেন না। 

বেলের উপকারিত: বেল কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে ও আমাশয়ে উপকার করে। আধাপাকা সিদ্ধ ফল আমাশয়ে অধিক কার্যকরী। বেলের শরবত হজমশক্তি বাড়ায় এবং তা বলবর্ধক। বেলের পাতার রস মধুর সাথে মিশিয়ে পান করলে চোখের ছানি ও জ্বালা উপশম হয়। পাতার রস, মধু ও গোল মরিচের গুঁড়া মিশিয়ে পান করলে জন্ডিস রোগ নিরাময় হয়।পেট খারাপ, আমাশয়, শিশুর স্মরণ শক্তি বারানোর জন্য বেল উপকারী। বেলে প্রচুর ভিটামিন সি আছে। এই ভিটামিন সি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। বেল নিয়মিত খেলে কোলন ক্যানসার হওয়ার আশঙ্কা অনেকাংশে কমে যায়।

স/আর

Print