যৌন হয়রানির বিরুদ্ধে হলিউড অভিনেত্রীদের কর্মসূচি

January 2, 2018 at 11:28 am

সিল্কসিটিনিউজ ডেস্ক:  চলচ্চিত্রাঙ্গনে অথবা অন্য কোথাও কাজ করতে গিয়ে যৌন হয়রানির শিকার হয়েছেন এমন নারীদের সাহায্যের জন্য একটি কর্মসূচি চালু করেছেন হলিউডের তিন শতাধিক অভিনেত্রী, লেখক ও পরিচালক।

এই কর্মসূচির নাম দেওয়া হয়েছে টাইম’স আপ।  নিউ ইয়র্ক টাইমসে এই বিষয়টি নিয়ে এক পৃষ্ঠার একটি বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়েছে। এই কর্মসূচিকে ‘বিনোদন জগতে সর্বক্ষেত্রে নারীদের জন্য পরিবর্তনের সমন্বিত আহ্বান’ বলে বর্ণনা করা হয়েছে।

চলচ্চিত্র প্রযোজক হার্ভে ওয়েনস্টেইনের বিরুদ্ধে প্রভাবশালী অভিনেত্রীরা যৌন হয়রানির অভিযোগ আনার পর এ বিষয়টি সামনে আসে।

টাইম’স আপ কর্মসূচির ওয়েবসাইটে সংহতিপত্রে বলা হয়েছে, নারীদের দুঃখ, কষ্টের দিন শেষ হতে হবে। জেগে উঠতে হবে এবং কঠোর হতে হবে। শুধু সহ্য করে যাওয়ার দিন শেষ। অপরাধীরা শাস্তি না পেলে তারা এ ধরনের কাজ করেই যাবে।

এই ক্যাম্পেইনে শত শত নারীর মধ্যে অস্কারজয়ী অভিনেত্রী নাটালি পোর্টম্যান, রিস উইদারস্পুন, ক্যাট ব্লানচেট, ইভা লঙ্গোরিয়া, এমা স্টোনের মতো জনপ্রিয় তারকারা রয়েছেন। ইতিমধ্যে তাদের তহবিলে ১৩ মিলিয়ন ডলার জমা হয়েছে। কর্মক্ষেত্রে যেসব নারী বা পুরুষ যৌন হয়রানির শিকার হয়েছেন তাদের আইনি সহায়তার জন্য এই তহবিল থেকে অর্থ দেওয়া হবে। বিশেষ করে যারা কৃষি কাজ করেন, কারখানার শ্রমিক বা যারা তত্ত্বাবধায়কের কাজ করেন কিন্তু আইনি লড়াইয়ের জন্য অর্থ ব্যয় কারার সামর্থ্য নেই তাদের জন্য এই তহবিল থেকে অর্থ ব্যয় করা হবে।

লিঙ্গ বৈষম্য দূরীকরণ, ক্ষমতার ভারসাম্যহীনতা রোধ, পদমর্যাদা ও বেতন প্রদানে সমতার জন্য আহ্বান করা হয়েছে।

গত বছরের শেষের দিকে অস্কারজয়ী প্রযোজক হার্ভে ওয়েনস্টেইনের বিরুদ্ধে মুখ খোলেন হলিউডের ডজন খানেক নায়িকা। তাদের এই হেনস্তার কথা শুনে সাহসী হয়ে ওঠেন আরো অনেকে। ‘মি টু’ (Me too) হ্যাশট্যাগে দুনিয়াজুড়ে নারীরা তাদের যৌন হেনস্তার কথা জানান।

অভিনেত্রী এলিসা মিলানোও যৌন হয়রানির বিরুদ্ধে এক টুইট করেন। সবাইকে এর বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার জন্য তিনি আহ্বান জানান।

২০১৭ সালের অক্টোবর থেকে ডিসেম্বরের মধ্যে ফেসবুক এবং টুইটারে ৬০ লাখবার যৌন হয়রানির বিরুদ্ধে হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করা হয়েছে।

তথ্যসূত্র : রাইজিংবিডি

Print