ভারতে ‘লাভ জিহাদ’ ঠেকাতে রাজস্থানে এক মুসলিমকে কুপিয়ে হত্যা

December 7, 2017 at 7:21 pm

সিল্কসিটিনিউজ ডেস্ক:

ভারতের পশ্চিমাঞ্চলীয় রাজ্য রাজস্থানের পুলিশ এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে যার বিরুদ্ধে আরেক ব্যক্তিকে কুপিয়ে হত্যা এবং তার গায়ে আগুন লাগিয়ে দেবার অভিযোগ আনা হয়েছে।

হত্যার পর কার্যত ‘ধর্মীয় কারণে চালানো এই হামলার’ ভিডিও ইন্টারনেটে শেয়ার করা হয়।

দ্বিতীয় আরেকটি ভিডিওতে অভিযুক্ত হত্যাকারীকে হামলার স্বপক্ষে যুক্তি দিতে শোনা যায় ”মুসলিমদের হাত থেকে হিন্দুদের সম্মানরক্ষার খাতিরে এই হামলা।”

পুলিশ বলেছে সন্দেভাজন ব্যক্তি শম্ভু লাল নামে একজন হিন্দু এবং নিহত ব্যক্তি একজন মুসলমান।

রাজস্থানের কোন কোন এলাকায় ইন্টারনেট সেবা ব্যবস্থা স্থগিত করে দেওয়া হয়েছে এবং এই ভিডিও শেয়ার না করার জন্য লোকজনের কাছে আহ্বান জানানো হয়েছে।

শান্তি রক্ষায় রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় বিপুল পরিমাণ পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

এই হামলার ঘটনা ঠিক কখন ঘটেছে তা স্পষ্ট নয়।

ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে সন্দেহভাজন শম্ভু লাল মুসলিমদের সাবধান করে দিয়ে বলছে: ”আমাদের দেশে যদি ‘লাভ জিহাদ’ চালাতে চান- আপনারও এই পরিণতি হবে।”

ভারতের ক্ষুদ্র কয়েকটি কট্টর হিন্দু গোষ্ঠির প্রচারণায় এই ‘লাভ জিহাদ’ শব্দটি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। এই গোষ্ঠিগুলো মুসলমানদের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছে যে তারা ”হিন্দু নারীদের ভুলিয়ে ভালিয়ে তাদের নিজেদের ধর্ম থেকে সরিয়ে আনার ষড়যন্ত্রে” লিপ্ত রয়েছে।

উর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তা আনন্দ্ শ্রীবাস্তবা বিবিসি হিন্দিকে জানিয়েছেন যে অভিযুক্ত ব্যক্তি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ কিছু ”ঘৃণা উস্কে দেওয়া” ভিডিও শেয়ার করেছে।

পুলিশ কর্মকর্তা আরও বলেছেন হামলাকারী এবং নিহত দুই ব্যক্তি একে অপরকে চিনত না এবং তাদের মধ্যে শত্রুতার কোন ইতিহাস নেই।

নিহত ব্যক্তির নাম মোহম্মদ আফরাজুল এবং সে পশ্চিমবঙ্গ থেকে সেখানে কাজ করতে যাওয়া এক দিনমজুর। রাজস্থানের উদয়পুর শহরে গত দশ বছরের ওপর ওই ব্যক্তি কাজ করছে এবং ওই শহরের বাসিন্দা।

”আমরা জেনেছি শম্ভু লালের পরিবারের কারোর ভিন্ন ধর্মে বিয়ে হয়নি। এই ভিডিওগুলোতে সে ঘৃণা ছড়ানো বিবৃতি দিয়েছে। সহিংসতা এড়ানোর জন্য আমরা দুই সম্প্রদায়কে নিয়ে বৈঠক করছি,” বলে জানান মি: শ্রীবাস্তবা।

বিবিসি বাংলা

Print