রাবির ৪ শিক্ষককে ক্লাস-পরীক্ষা থেকে বরখাস্ত

December 7, 2017 at 6:23 pm

নিজস্ব প্রতিবেদক:
সিনিয়র শিক্ষককে ফাঁসানোর অভিযোগে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ব্যবস্থাপনা বিভাগের চার শিক্ষককে একটি বর্ষের সব ধরনের ক্লাস ও পরীক্ষা কার্যক্রম থেকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। গতকাল বুধবার রাবি উপাচার্য আব্দুস সোবহানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সিন্ডিকেটের ৪৭৪তম সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

একইসাথে এ অভিযোগ খতিয়ে দেখার জন্য চার সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির আহ্বায়ক করা হয়েছে রাবির রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক এম আমিনুর রহমানকে। তবে কমিটির ব্যাপারে এখনও তাকে কিছু জানানো হয়নি বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, ‘সিন্ডিকেটের সভায় গঠিত কমিটির ব্যাপারে কিছু জানি না। জানতে পারলে সে অনুয়ায়ীই কাজ করবো।’

বরখাস্তকৃত ওই চার শিক্ষক হলেন- বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোহা. সোলাইমান, ড. জিন্নাত আরা বেগম, ড. মোছা. হাসনা হেনা ও ড. মো. সাইফুল ইসলাম।

বিভাগ সূত্রে জানা যায়, বিভাগের ২০১৩-১৪ সেশনের তৃতীয় বর্ষের দ্বিতীয় সেমিস্টারের কয়েকজন শিক্ষার্থীকে দিয়ে এক শিক্ষককে ফাঁসানোর জন্য শ্রেণিকক্ষে তার কথাবার্তা মুঠোফোনে রেকর্ড করে নেন ওই চার শিক্ষক। পরে তা বিভাগের সভাপতির কাছে জমা দেন। এ সময় তারা লিখিত অভিযোগও করেন।

পরে সভাপতি বিষয়টি একাডেমিক কমিটির সভায় আলোচনা শেষে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে অবগত করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে সিন্ডিকেটে ওই বর্ষের শিক্ষার্থীদের মাস্টার্স পর্যন্ত সব ধরনের ক্লাস বা পরীক্ষা নেওয়া থেকে চার শিক্ষককে সাময়িকভাবে অব্যাহতি দেওয়া হয়। একইসাথে কমিটিকে তাদের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগটি খতিয়ে দেখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বিভাগের সভাপতি ড. মো. জাফর সাদিক সিল্কসিটি নিউজকে বলেন, ‘বিভাগের স্বার্থে আমি বিষয়টি দ্রুত সমাধানের জন্য প্রশাসনকে অবগত করি। প্রশাসন সিন্ডিকেটে যে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে তা শুনেছি। তবে তদন্ত কমিটির বিষয়ে কিছু জানি না।’

এ ছাড়াও মোহা. সোলাইমান চৌধূরীর বিরুদ্ধে বিভাগের দুই সিনিয়র শিক্ষকের বিরুদ্ধে আপত্তিকর লিফলেট বিতরণের অভিযোগ ওঠে।

সভা সূত্র জানায়, বিভাগের সান্ধ্য মাস্টার্স কোর্সের প্রশ্নফাঁসের ঘটনায় গত নভেম্বরে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছিলো। সভায় ওই কমিটিকেই লিফলেট বিতরণের অভিযোগটি খতিয়ে দেখার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
স/শ

Print