কোটলায় মাস্ক পরে শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটাররা

December 3, 2017 at 11:28 pm

সিল্কসিটিনিউজ ডেস্ক:

দিল্লির দূষণ ও বিরাট কোহলির জমাট ব্যাটিং-এর জোড়া ফলায় নাকাল হতে হল শ্রীলঙ্কাকে। বিরাট কোহলি দেশকে গর্বিত করেছেন ঠিকই, তবে দিল্লির দূষণ লজ্জা দিয়েছে ভারতকে। পরিস্থিতি এতটাই খারাপ হয়ে যায় যে খেলা থামাতেও বাধ্য হন আম্পায়াররা। ফলে, কেন এই মাঠে খেলা আয়োজন করা হল, তা নিয়ে বিসিসিআই-এর কাছে জবাবদিহি চাইল শ্রীলঙ্কার ক্রিকেট বোর্ড।

ফিরোজ শাহ কোটলায় সকাল থেকেই মাস্ক পরে নেমেছিলেন শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটাররা। অসুস্থ হয়ে মাঠ ছাড়তে বাধ্য হন লঙ্কার দুই বোলার লাহিরু গামেজ ও সুরঙ্গা লাকমল। খেলা চলাকালীন ভীষণভাবে কমে গিয়েছিল দৃশ্যমানতা। বারবার আম্পায়ারের কাছে খেলা বন্ধের দাবি জানাচ্ছিলেন শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক দীনেশ চান্দিমল। দুদফায় বন্ধও হয়েছে খেলা। প্রথমবার ১৫ মিনিটের জন্য পরে আরও ৫ মিনিট খেলা বন্ধ থাকে।

শ্রীলঙ্কার ক্যাপ্টেন বারবার আম্পেয়ারের কাছে গিয়ে পরিবেশ নিয়ে অভিযোগ জানাচ্ছিলেন। পরিস্থিতি এমন জায়গায় পৌঁছয় যে ৫৩৬ রানে ডিক্লেয়ার করতে কার্যত বাধ্য হন বিরাট কোহলি। কোহলির চোখমুখ দেখেই মনে হচ্ছিল, শ্রীলঙ্কার হার বাঁচানোর নাটকে কতটা ক্ষুব্ধ তিনি। সফরকারী দেশের ক্রিকেটাররা মাঠ ছাড়লে দেশকে আরও বড় কলঙ্কের মুখে পড়তে হত, তাও সম্ভবত মাথায় ছিল বিরাট কোহলির। ফিল্ডিংয়ের সময় মাস্ক পরেননি ভারতীয় ক্রিকেটারা। তা ভারতের জন্য ভাল বিজ্ঞাপন হত না। বারবার বিঘ্ন ঘটায় খেলায় মনোনিবেশ করতে পারেননি কোহলিও। মাঠেই ফেলে এলেন আড়াইশো। যে ফর্মে ছিলেন এবং হাতে যা সময় ছিল, তাতে তিনশোও হয়ে যেতে পারত বলে আক্ষেপ ক্রিকেটপ্রেমীদের।

গত দুমাস ধরে ভয়াবহ দূষণে বিপর্যস্ত দিল্লির জনজীবন। গোটা শহর ধোঁয়ার কবলে। দিল্লির পড়শি দুই রাজ্য পঞ্জাব ও হরিয়ানার চাষিরা ফসলের আবর্জনা পোড়ান। এটা রাজধানীর দূষণের অন্যতম কারণ। অথচ দুই রাজ্যই এ ব্যাপারে উদাসীন। কেন্দ্রের শাসক দলের অভিযোগ, বরাদ্দ অর্থ খরচ করতে পারেনি দিল্লির আপ সরকার। অন্যদিকে, আপের বক্তব্য, দিল্লি সরকারকে কাজ করতেই দেওয়া হয় না। দূষণের মোকাবিলায় ইতিবাচক পদক্ষেপ করতে পারেনি কেন্দ্রীয় সরকার। দিল্লিবাসীকে আতান্তরে রেখে একে অপরের কোর্টে বল ঠেলাঠেলি করছে সবপক্ষই।

এহেন ‘দূষণনগরী’তে কোন যুক্তিতে ম্যাচ আয়োজন করল ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড? গোটা বিশ্ব আজ দেখল, ভারতের রাজধানীর ভয়ঙ্কর দূষণের ছবি। বিসিসিআই-এর সৌজন্যে দূষণের সেই করুণ ও ভয়ঙ্কর ছবি বেআব্রু হয়ে গেল দুনিয়ার দরবারে। ইতিমধ্যেই বিসিসিআই-এর কাছে জবাবদিহি চেয়েছে শ্রীলঙ্কা।

Print