স্বামী-স্ত্রীর রহস্যজনক মৃত্যু: ময়নাতদন্তের জন্য লাশ রামেকে

October 22, 2017 at 7:17 pm

গোদাগাড়ি প্রতিনিধি:

রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে গলায় ফাঁস দিয়ে স্বামী স্ত্রীর রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। তবে পুলিশ এটিকে আত্মহত্যা বলছে।

স্বামী-স্ত্রীর একই ঘরে একসাথে আত্মহত্যার ঘটানা এলাকাবসীর কাছে রহস্য জনক বলে মনে হচ্ছে।

জানা যায়, রোববার উপজেলার প্রেমতলী শেখেরপাড়া গ্রামে শহিদুল ইসলামের ছেলে শামিউল ইসলাম সানি(২৮) এবং তার স্ত্রী জিন্নাতুন নেসা নিপা(২৪) তাদের শয়ন কক্ষে আত্মহত্যা করে।

এলাকাবসী ও স্থানীয় ইউপি সদস্য শামিম ইকবালের সাথে কথা বলে জানা যায়, তাঁর মা আলেয়ার বেগম ও বাবা এই সময় বাড়ীতে ছিলেন না। ঠিক দুপুর দেড়টার দিকে তার খালা বাড়ীতে আসে। বাড়ীতে কাউকে না দেখতে পেয়ে ডাকাডাকি করলে কোন সারা পাওয়া যায়নি এই সময় আশে পাশের লোকজন কে ডাকা ডাকি করে বাড়ীতে লোকজন যায়। বাড়ীতে প্রবেশ করে দেখে ঘরের ভিতর হতে দরজা লাগনো আছে পরে দরজা ভেঙ্গে ঢুকলে সামিউল ইসলাম সানির লাশ ঘরের ছাদের সাথে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ঝুলছিলো আর জিন্নাতুন নেসা নিপার লাশ ঘরের মেঝেতে পড়ে ছিলো।

পড়ে পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থল হতে লাশ উদ্ধার করে । তবে এই ঘটনা জানাজানির পর পরই সামিউল ইসলাম সানির বাবা ও মা বাড়ী থেকে সটকে পড়েছেন। বিকেল ঘটনাস্থলে গিয়ে বাড়ীতে গিয়ে দেখা যায়, দুই ঘরে তালা দেওয়া রয়েছে। তাদের কোন নিকট আত্মীয়কে পাওয়া যায়নি। স্থানীয় ইউপি সদস্য বাড়ীর নিরাপত্তার জন্য কাজ করছিলো।

এলাকাবাসী ধারনা করছে , তাদের পারিবারিক বিরোধের জের ধরে এমন ঘটনা ঘটনা পারে। রাতে হয়তো স্বামী স্ত্রী দুই জন ঝগড়া করেছে। এরপর জিন্নাতুন নেসা নিপাকে গলা টিপে হত্যা করে পরে সামিউল নিজেই গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছে। নইলে ছেলের লাশ ঝুলন্ত অবস্থা ও মেয়ের লাশ মেঝেতে পড়ে থাকে কি করে?

আরও জানা যায়, সামিউল ইসলাম ঢাকায় কাজ করতো। তার বড় ভাই লিটন ঢাকাতেই কাজ করে। তার দুই বোনের বিয়ে হয়ে যাওয়াই শ্বশুড় বাড়ীতে থাকে। আর সানি সবার ছোট। তারা গ্রামের মানুষের সাথে কেসন মিশত না। সামিউল ইসলাম সানির বাবা স্থানীয় বাজারে মুদি ব্যবসায়ী।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, প্রায় ১০ মাস আগে প্রেমতলীর শেখপাড়া এলাকার শহীদুল ইসলামের ছেলে সামিউল ইসলাম সানির সাথে ফরহাদপুর গ্রামের আব্দুল কুদ্দুসের মেয়ে জিন্নাতুন নেসা নিপার সাথে প্রেম করে বিয়ে হয়। সেটি ছিল সানির তৃতীয় বিয়ে। আর নিপার এটি দ্বিতীয় বিয়ে। এইচএসসি পড়া অবস্থায় রাজশাহী শহরের একটি ছেলের সাথে নিপার বিয়ে হয়। সেই বিয়ের ১ বছরের মধ্যে সম্পর্ক ছিন্ন হয়। সানির সাথে বিয়ের পর নিপা তার স্বামীর বাড়ীতেই থাকতো।

দুপুর দুইটার দিকে বাড়ির লোকজন বিষয়টি জানতে পেরে পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ সেখানে উপস্থিত হয়।

গোদাগাড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) হিপজুর আলম মুন্সি বলেন, প্রাথমিক ভাবে এটাকে আত্মহত্যায় বলে মনে হচ্ছে। তবে ভিতরে আর কোন ঘটনা আছে কিনা তা লাশ ময়না তদন্ত করে জানাযাবে এবং সেই অনুযাবি আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

লাশ দুটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে বলে ওসি জানান।

স/অ

Print