দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে মৌলিক গবেষণা কতটা হচ্ছে?

October 13, 2017 at 6:10 am

সিল্বসিটিনিউজ ডেস্ক:

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ কল্যাণ ইন্সটিটিউট। এই ইন্সটিটিউটের একজন শিক্ষক তৌহিদুল হক। গত তিন বছর ধরে একটি সামাজিক বিষয়ে গবেষণা করছেন। তিনি এই গবেষণার মাধ্যমে নতুন একটি থিউরি আবিষ্কার করার চেষ্টা করছেন।

তিনি বলছেন গবেষণাটি সফলভাবে শেষ করতে পারলে, এই থিউরিটি হবে বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে একটি সামাজিক বিষয়ের নতুন জ্ঞানের আবিষ্কার।

মি. হক বলছিলেন ” আমি যেটা নিয়ে কাজ করছি সেটার নাম ‘LOR Theory’ । মানুষের আচরণ থেকে কিভাবে অপরাধ মূলক আচরণ প্রতিহত করা যায়, আইন, সামাজিক নিয়মকানুন, মানুষের প্রতি সম্মানবোধ এই তিনটি বিষয়কে সমন্বিত করে কিভাবে মানুষের আচরণের মধ্যে সুস্থ ও স্বাভাবিকতা আনা যায় -এটাই এই গবেষণার মূল উপজীব্য।

তৌহিদুল হক গবেষণাটি করছেন সম্পূর্ণ নিজের খরচে। একটি মৌলিক গবেষণা চালিয়ে যাওয়ার জন্য ধারাবাহিক চেষ্টা এবং অর্থের জোগান থাকা একটি অপরিহার্য বিষয়।

মি. হক বলছিলেন যদি আর্থিক সহায়তা না পান তাহলে গবেষণার শেষ পর্যন্ত তিনি নিজের অর্থ ব্যয় করে কার্যক্রম চালিয়ে যাবেন।

তবে এই ধরণের ঘটনা হাতে গোনা। বাংলাদেশে অনুমোদিত পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে ৪২ টি আর বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে ৯৫টি। মোট ১৩৭টি

বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক রয়েছেন কয়েক হাজার। বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে পাঠদান, জ্ঞান চর্চা এবং নতুন জ্ঞানের আবিষ্কার এই তিনটা বিষয়কে বৈশিষ্ট্য হিসেবে ধরা হয়।

কিন্তু পাঠদান, জ্ঞান চর্চা হলেও নতুন জ্ঞানের আবিষ্কার বা মৌলিক গবেষণা কতটা হচ্ছে বা মৌলিক গবেষণার সংস্কৃতি কি আছে?

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামান

বাংলাদেশের অন্য

Print