ঊনকবি মহাকবি ।। সাজ্জাদ হোসেন

October 3, 2017 at 7:49 am

ঊনকবি ঊন মন ঊন বোধ-চিন্তন
ঊন হাতে লিখেছিল ঊন কিছু পদ্য,
ঊন তার ভাষাজ্ঞান ঊন প্রাণ আনচান
ঊন ছাঁচে ঢেলেছিল খুনে কিছু গদ্য।

মহাকবি মহামন মহা তার মন্থন
মহা ভাষে রচে চলে মহা মহা কাব্য,
মহা সে যে মহাজ্ঞানী বলে সব বেদবানী
মহা জলধিতে ভাসে শুধু হলে নাব্য।

এক প্রাতে ঊনকবি যেই ক্ষণে জাগে রবি
কাঁপা কাঁপা পায়ে পায়ে পৌঁছালো সৈকত,
মহাকবি কবিরাজ কবিতার অধিরাজ
বলে তাকে, ‘থামো থামো, বাড়োনাকো ওই পথ।’

ঊনকবি লাজে লাল হয়ে পুরো বেসামাল
করে তাকে মহাপূজা দিল নিজ সৃষ্টি।
মহাকবি ভুরু উঁচা, বলে তাকে দিয়ে খোঁচা,
‘ছাগলে কি চষে জমি? আছে কোন কৃষ্টি?
যাও ফিরে শিগগির, নয় কাটা যাবে শির
ধীবরে কি পারে কভু পঠিতে ও চণ্ডী?
কবি যদি হতে চাও সিদ্ধির ধ্বজা নাও
না হয় চেয়ো না ফের ভাঙিতে স্ব-গণ্ডি।’

ঊনকবি ভয়ে ভীত, হয়ে গৃহে উপনীত
জ্বেলে দিল লেখা যত রচেছিল নিজে সে,
বিদ্যার চাষ ফেলে লাঙলের ফলা ঠেলে
ফুঁড়ে চলে মাটি শুধু হয়ে অবনত সে।

হেন মহা অনাচারে দিয়ে ঘের চার ধারে
নেমে এল নারায়ণ শিবরূপে ভূধরে
ধরে নিয়ে কবিরাজ করে তাকে তিন ভাঁজ
ত্রিশূলের শূল মাথা ভরে দিল উদরে।

নারায়ণ বলে, ‘শোনো, এইবার দিন গোনো
অহংয়ের বেসাতিতে হয় না তো কবিতা,
নও তুমি বিচারক, মিথ্যার প্রচারক
কলুষিত চেতনাকে গিলে খাক সবিতা।’

লেখক: লেখক ও সাংবাদিক

Print